অস্তিত্ব রক্ষার সংগ্রামে বাংলায় আজও দেখা মেলে “নীল গাছ”।

- Advertisement -
- Advertisement -

গ্রাম বাংলাঃ অস্তিত্ব রক্ষার সংগ্রামে আজো বাংলার বুকে টিকে আছে নীলকর সাহেব দের অত্যাচারের সাক্ষী “নীল গাছ”। বাঁকুড়ার জঙ্গল মহলে, যেখানে এক সময় নীলকর সাহেবরা  নীলকুঠি তৈরী করে সংগ্রহ করতো নীল, পাশবিক অত্যাচার চালিয়ে চাষীদের বাধ্য করা হত নীল চাষে, সেই সকল এলাকায় এখনো দেখা মেলে ” নীল গাছ”।

‘নীলচাষ’ শব্দটি শুনলেই চোখের সামনে ইতিহাসের পাতা ছেড়ে উঠে আসে বাংলার অসহায় কৃষকের ছবি। সে ছবি কথা বলে না, তবুও লক্ষ লক্ষ বাঙালীর হৃদয় আজো স্মৃতিকাতর হয়ে ওঠে! সে স্মৃতি বড্ড দুঃখের, যন্ত্রণার, বাংলার কৃষকের উপর ইংরেজ বণিকদের অত্যাচার, নির্যাতন, কৃষকের ক্ষুধার জ্বালার নির্মম চিত্র।  আর ইতিহাসের সেই যন্ত্রণাময় কাহিনীর স্মারক হয়ে আজও বাংলার বিভিন্ন স্থানে দাঁড়িয়ে আছে বেশ কিছু “নীলকুঠি”, এখনো নিজের অজান্তেই ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে “নীল গাছ”।

১৭৫৭ সালের  ২৩শে জুন পলাশির আম বাগানে  মীর জাফরের বিশ্বাস ঘাতকতায় ব্রিটিশদের কাছে  পরাজিত হন বাংলার শেষ স্বাধীন নবাব সিরাজ-উদ-দৌল্লা। তাঁর পরাজয়ের সাথে সাথেই  অস্তমিত হয়েছিল স্বাধীনতার সূর্য। ভারতবর্ষ বাধা পড়েছিলো পরাধীনতার শৃঙ্খলে। প্রচ্ছন্নেই লেখা হয়ে গিয়েছিল লক্ষ লক্ষ মানুষের যন্ত্রণার কাহিনী। তখন থেকেই বাংলায় এক দুর্ভাগ্যজনক ইতিহাসের সূত্রপাত হয়; সেই ইতিহাস হাজার হাজার বাঙালী কৃষকের মৃত্যু যন্ত্রণার ইতিহাস, সেই ইতিহাস নীল চাষের ইতিহাস। 

“ভারতের আর সব কৃষিপণ্য ও শিল্পের তুলনায় নীলশিল্পের কাহিনী ঐতিহাসিকভাবে অনেক কৌতুহল-উদ্দীপক, মর্মন্তুদ ও শিক্ষাপ্রদ ”  – ব্রিটিশ ভারতের অর্থকরী কৃষি উৎপাদনের সরকারী প্রতিবেদক ও প্রখ্যাত উদ্ভিদবিজ্ঞানী স্যার জর্জ ওয়াট ভারতের নীলচাষ সম্পর্কিত তার প্রতিবেদনে এভাবেই উল্লেখ করেছেন।

সেই “নীলগাছ” এর এখনো দেখা মেলে বাঁকুড়ার সারেঙ্গায়। যেখানে বর্তমানে  সারেঙ্গা থানা রয়েছে ঠিক তার পিছনেই নীলকর সাহেবরা স্থাপন করে নীল কুঠি। জানাযায়, সারেঙ্গা রাইপুর এর বিস্তির্ণ এলাকায় যে নীলচাষ হত সেই নীল সংগ্রহ করা হত এখানে। এই এলাকার মাঠি ও আবহাওয়া ছিল  নীল চাষের উপযুক্ত। এখানে আজো রয়েছে ইংরাজদের পরিত্যক্ত “নীলকুঠি”, তাদের ব্যবহারের জন্য তৈরী কুয়ো, নীল চাষের জন্য খনন করা পুকুর। তবে শুধু সারেঙ্গা নয়, যে এলাকায় নীলকুঠি ছিল, যেখানে নীল চাষ হতো সেই সকল একাকায় এখনো নীল গাছের দেখা মেলে। কারণ যে হেতু এই আবহাওয়া নীল চাষের উপযুক্ত তাই জলবায়ুর সাথে মানিয়ে ঠিকে আছে জীবন সংগ্রামে। এই হয়তো অনেকেই দেখেছেন পথের ধারে, আগাছার ভীড়ে হয়তো অনেকেই জানে না। তবে হ্যাঁ এই গাছ গুলোই এক সময় ইষ্ট ইণ্ডিয়া কোম্পানীর কাছে ছিল ধ্যান,জ্ঞান। এই গাছ থেকে ফুলে ফেঁপে উঠেছিল তাদের সিন্দুক। দিন দিন বাড়ছিল শোষন আর লুন্ঠন। সেই অত্যাচারের বিরুদ্ধে গর্জে উঠেছিল ভারত মাতার বীর সন্তানেরা। তাদের আত্মবলিদানের মধ্য দিয়েই ভারত মাতার কোল আলো করে উদিত হয়েছিল স্বাধীনতার সূর্য। ভারতের বুক থেকে বিদাই নিয়েছে ইংরেজরা। আজো বেঁচে আছে নীল গাছ।

- Advertisement -

Latest news

ডেঙ্গু বিজয় অভিযান আসানসোলে।

গ্রাম বাংলা, বাঁকুড়া:- পশ্চিমবঙ্গ সরকারের ডেঙ্গু বিজয় অভিযানের অংশ হিসেবে আজ কুলটিতে ডেঙ্গু বিজয় অভিযান শুরু হয়। এই উদ্দেশ্যে কুলটি বোরো অফিস...
- Advertisement -

মুকুটমনিপুর জলাধার থেকে কংসাবতী নদীতে ছাড়া হল জল।

গ্রাম বাংলাঃ মুকুটমনিপুর জলাধার থেকে নদীতে ছাড়া হল জল। সেচ দফতর সূত্রে খবর, মুকুটমনিপুর জলাধার থেকে কংসাবতী নদীতে পাঁচ হাজার কিউসেক জল...

সাধনা ও শান্তির স্থান পঞ্চবটির হোল শুভ উদ্বোধন।

নিজস্ব সংবাদদাতা, পূর্ব মেদিনীপুরঃ শ্রী শ্রী রামকৃষ্ণ ঠাকুরের মাতৃ দর্শনের ঐতিহ্য ও তার সাধনাস্থলের মনোরম পরিবেশের কথা মাথায় রেখে পঞ্চবটী বনের  শুভ...

জলপাইগুড়ি চা বাগান থেকে উদ্ধার বিশাল অজগর।

সম্পা ভট্টাচার্য, জলপাইগুড়ি:-কালচিনি ব্লকের ডীমা চা বাগান থেকে একটি বিশালাকার অজগর উদ্ধার করল বনকর্মীরা । শনিবার সকালে ডীমা চা বাগানের বীচ লাইনে...

Related news

ডেঙ্গু বিজয় অভিযান আসানসোলে।

গ্রাম বাংলা, বাঁকুড়া:- পশ্চিমবঙ্গ সরকারের ডেঙ্গু বিজয় অভিযানের অংশ হিসেবে আজ কুলটিতে ডেঙ্গু বিজয় অভিযান শুরু হয়। এই উদ্দেশ্যে কুলটি বোরো অফিস...

মুকুটমনিপুর জলাধার থেকে কংসাবতী নদীতে ছাড়া হল জল।

গ্রাম বাংলাঃ মুকুটমনিপুর জলাধার থেকে নদীতে ছাড়া হল জল। সেচ দফতর সূত্রে খবর, মুকুটমনিপুর জলাধার থেকে কংসাবতী নদীতে পাঁচ হাজার কিউসেক জল...

সাধনা ও শান্তির স্থান পঞ্চবটির হোল শুভ উদ্বোধন।

নিজস্ব সংবাদদাতা, পূর্ব মেদিনীপুরঃ শ্রী শ্রী রামকৃষ্ণ ঠাকুরের মাতৃ দর্শনের ঐতিহ্য ও তার সাধনাস্থলের মনোরম পরিবেশের কথা মাথায় রেখে পঞ্চবটী বনের  শুভ...

জলপাইগুড়ি চা বাগান থেকে উদ্ধার বিশাল অজগর।

সম্পা ভট্টাচার্য, জলপাইগুড়ি:-কালচিনি ব্লকের ডীমা চা বাগান থেকে একটি বিশালাকার অজগর উদ্ধার করল বনকর্মীরা । শনিবার সকালে ডীমা চা বাগানের বীচ লাইনে...
- Advertisement -

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here